January 28, 2016 চা পাতার পাইকারি ব্যবসা

চা পাতার পাইকারি ব্যবসা

Share The Post

চা পাতার ব্যাবসা :

চা পাতা নিয়ে আজ আর একটি রিভিও আপনাদের মাঝে তুলে ধরছি। সেটা হলো চা পাতার পাইকারি ব্যাবসাচা পাতার ডিলার ব্যাবসা নিয়ে। আসলে আমরা ব্যবসা বলতে মনেকরি কিছু টাকা মার্কেট এ খাটিয়ে খুব সহজভাবে ও গুনগত মানের পণ্য বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে যে অর্থ উপার্জিত হয় তাকেই ব্যাবসা মনে করি। যাক আমি অন্য ব্যবসা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে চা পাতার ব্যবসার দিকে চলে যাই। চা পাতার ব্যবসা এমন একটি ব্যবসা যেটি অনেক ক্রিটিক্যাল ব্যবসা আর কারো কাছে বেশি লাভজনক ও কারো কাছে কম লাভজনক ব্যবসা। আপনি হয়তো দেখবেন আপনার এলাকায় একজন চা পাতা বিক্রি করে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছে। আবার দেখবেন একজন চা ব্যবসা করতে গিয়ে পুজি হারিয়ে ফেলেছে। এখানেই আপনাদের চা ব্যবসা সমন্ধে অনেক জ্ঞান অর্জন হয়ে যাবে। এবার নিচে পড়ুন কিভাবে আপনি চা পাতার ব্যবসাকে উন্নত করবেন।

আসলে তা না, ওনার চা পাতার ব্যবসা এমন ভাবে গঠন করে নিয়েছে যেটি চা পাতার মান নিয়ে অনেক এগিয়ে গিয়েছে। দেখবেন ওনি মার্কেট এ অনেক টাকা ফেলে রেখেছে কাস্টমারদের কাছে। আবার ওনি চা পাতা ক্রয় করেছে সব থেকে ভাল মানের। আবার দেখবেন ওনি মার্কেট এ কম লাভে চা পাতা সেল করেছে। এভাবেই একদিন ওনি ওনার প্রতিষ্ঠান বড় করেছে। এর জন্য ওনাকে কত পরিশ্রম ও কত ধৈর্য ধরতে হয়েছে সেটা একমাত্র ওনিই ভাল জানেন। সে জন্য ওনি সফল ব্যবসায়ি ও আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। আবার দেখবেন অনেকেই চা পাতার ব্যবসা করে অল্পদিনে পুজি হারিয়ে ফেলেছে। তার কারন হল ওনি কম দামে চা পাতা কিনে মার্কেট এ বেশি লাভ করেছে। এভাদে একদিন, দুইদিন, মাসের পর মাস ওনি খারাপ চা পাতা দেওয়ার জন্য বেশিরভাগ কাস্টমার হারিয়ে ফেলেছে। সেই কারনে ওনার এই অবস্থা। এখন উপরক্ত বিষয় দুটি লক্ষ করলে বুঝবেন কেন চা পাতার ব্যবসা অনেক লাভজন ও কম লাভজনক। এখানে মার্কেট নিয়ে ওনেক কথা বললাম, যাইহোক এখন চা পাতার বিজনেস নিয়ে আলোচনা করি।

কিভাবে শুরু করবেনঃ চা পাতার ব্যবসা এমন একটি ব্যবসা যে আপনি বললেন আর শুরু করলেন এমন করা একদমেই যাবে না। এর জন্য আপনার এলাকার চায়ের দোকানে যেতে হবে প্রথমে। দেখতে হবে আপনার এলাকায় কোন রকম চা পাতি চলে চা পাতি নিয়ে আরো একটি পোস্ট আছে দেখে আসতে পারেন। তারপর দেখবেন আপনার এলাকার ঐ চা স্টলের দোকানীরা কত দামের মধ্যে চা পাতা ক্রয় করে থাকে এবং চা পাতার মান কেমন। এসব যাচাই বাচাই করে তারপর আপনি চা ব্যবসায় নামতে পারেন।

চা পাতা ক্রয়ঃ আপনি আপনার এলাকার মার্কেট এর জন্য যখন চা পাতার ব্যবসা শুরু করবেন তখন অবশ্যই আপনাকে ভাল মানের চা পাতা যেমন কষ, লিকার, গন্ধ ভাল সেই সব পাতা কিনতে হবে। এর জন্য আপনি যদি প্রথমে কম মূল্যের চা পাতা কিনে মার্কেট এ দেন তাহলে আপনি আপনার ক্রতা হারিয়ে ফেলবেন এবং আপনার আস্থাও হারিয়ে যাবে। প্রথমে আপনাকে কম লাভে চা পাতা সেল দিতে হবে। সেটা হোক খোলা চা পাতা অথবা হোক প্যাকেট চা পাতা
আপনার কাস্টমার কখনও আপনাকে দেখবে না, দেখবে আপনার চা পাতার লিকার কেমন হয় ও রং কেমন আছে। বিশেষ করে লিকার, রং ও স্বাদ এর উপর ভিত্তি করে চা পাতার ব্যবসা চলে।

কোথায় থেকে কিনবেনঃ আপনি চা পাতা কিনতে গেলে ওয়াকশন থেকে কিনতে পারেন। বাংলাদেশে চট্টগ্রাম বিভাগে ও সিলেট জেলার শ্রীমঙ্গলে চা পাতার ওয়াকশন হয়। বাংলাদেশ চা বোর্ড কতৃক এই অয়াকশন ডাকা হয়, আপনি সেখান থেকে চা পাতা ক্রয় করতে পারেন। সে জন্য অবশ্যই আপনাকে চা বোর্ড হতে লাইসেন্স করে নিতে হবে। তারপর বৈধ ভাবে আপনি চা পাতা ক্রয় করতে পারবেন। ওহ্ হ্যা… আপনি যদি চা পাতা সমন্ধে কিছু না জানেন তাহলে ওয়াকশন থেকে লাখ টাকা ব্যয়ে চা পাতা কিনে কোন লাভ হবে না। কারন ব্লান্ড করতে আপনাকে অবশ্যই পারদর্শী হতে হবে। তা না হলে আপনি লস এ পড়বেন।

এর থেকে ভাল আপনি যারা ব্লান্ড করে তাদের কাছ থেকে কিনবেন। তাহলে আপনি ঝামেলা মুক্ত ও ভাল চা পাতা পাবেন। যা আপনার চায়ের বাজার চাঙা করতে যতেষ্ট।

কিভাবে চা পাতা বিক্রি করবেনঃ আপনি ব্লান্ড করা চা পাতা পাইকারি দামে কিনে আপনার এলাকায় চা স্টলগুলোতে খুচরা বিক্রি করবেন। এতে করে আপনার ব্যবসা অনেক ভাল চলবে। যদি সব সময় সঠিক মানের চা পাতা দিতে পারেন। আর চা পাতার বিক্রি করার নিয়মও আছে কিছু সেটা হলো___আপনাকে প্রতিদিন মার্কেট এ যেতে হবে, এবং কাস্টমার সাপোর্ট ভাল করে দিতে হবে। আপনি যদি একটি টি স্টলে ৫০০ গ্রাম চা পাতা একদিন দিয়ে আর ৩ দিন সেই দোকানে না যান, তাহলে কিন্তুু ঐ চা স্টলের দোকানী আপনার জন্য বসে থাকবে না। অন্য কারো কাছ থেকে চা কিনে দোকান চালাবে। এই জন্য আপনাকে প্রতিদিন দোকানে যেতে হবে এবং প্রতিদিন সকালে অথবা সন্ধায় চা পাতা তাদের দিয়ে আসতে হবে। এভাবেই চলবে আপনার চা পাতার ব্যবসা।

চা পাতার ডিলার ব্যবসা : ডিলারশীপ চা পাতা নিয়ে আপনি আপনার এলাকায় করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কোন কোম্পানির কাছ থেকে চা পাতার ডিলার নিতে হবে। টি ব্যবসা দিয়ে যে শুরু করবেন তা না। সাথে আরও কিছু আইটেম নিয়ে মাঠে নামলো অনেক ভাল হয়। আপনি ডিলারশীপ চা পাতার ব্যবসা শুরু করলে অবশ্যই আপনাকে প্যাকেট করা চা পাতা নিতে হবে। বাংলাদেশে শত শত চা পাতার ডিলারশীপ কোম্পানি আছে। তবে অবশ্যই আপনি বিএসটিআই সার্টিফিকেট দেওয়া কোম্পানির কাছ থেকে চা পাতা কিনে বিজনেস করবেন।

Tea business করতে গেলে আপনাকে সব সময় উপরের কথাগুলো ভেবে চিন্তে করতে হবে তাহলে আপনি tea business wholesale market in bangladesh এ ভাল ভাবে সাইন করতে পারবেন।

কিছু চা পাতার নাম

tea of bangladesh এ চায়ের কিছু উল্ল্যেখযোগ্য নামঃ সিডি চা, সিডি ডাস্ট চা, ডাস্ট চা, জিবিওপি চা, বিওপি চা, ক্লোন চা, আরটি চা, পিএফ চা, ওএফ চা সহ আরও নানা ধরেনের চা পাবেন।

কিছু কখা না বললেই নয়ঃ যদি মনে করেন যে চা পাতার ব্যবসা আপনি সারাজীবন করে যাবেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে ভাল মানের চা পাতা ক্রয় করে ব্যাবসা করতে হবে। আপনি যদি চা পাতার ব্যবসায় প্রথমে অনেক লাভ খেতে চান তাহলে আপনি ব্যবসা করতে পারবেন না। প্রথমে আপনাকে ভাল চা পাতা ক্রয় করতে হবে। তারপর সীমিত লাভে আপনাকে মার্কেট এ দিতে হবে এবং এটি কন্টিনিউয়াস দিতে হবে। তাহলে একদিন সফল হবেন ইনশাআল্লাহ্।

আর যদি বলেন যে কম দামে চা পাতা কিনে আমি বেশি দামে বিক্রি করে বছরেই লাখপতি হবো তাহলে একমাসেই আপনার চা পাতার ব্যবসার জন্য ইন্নালিল্লাহ….রাজেউন পড়তে হবে।

তবে যেনে রাখা ভাল — আপনি ২৮০ টাকা থেকে ৩০০/- পর্যন্ত চা পাতা ভাল হয়ে থাকে। আর ৩১০/- থেকে ৩৫০/- পর্যন্ত চা পাতা একদমেই মার্কেট এর জন্য ও ব্যবসার জন্য উপযুক্ত।

আর বাকিটা উপরওলার কাছে ও আপনার মার্কেটিং এর উপর নির্ভর করবে।

কিনবেন নাকি চা পাতা.?? আমরা সিলেট এর ভাল বাগানের চা পাতা সারাদেশে দিয়ে থাকি, সেটা ডিলার হোক বা পাইকারি হোক। আমাদের চা পাতা ও আমাদের কোম্পানি সমন্ধে গুনগান নিজে না গাওয়াই ভাল…!! তবে হ্যা আমাদের চা পাতা নিলে যদি আপনার মার্কেটিং ধারনা ভাল থাকে তাহলে ইনশাআল্লাহ্ আপনি চা পাতার ব্যবসা দিয়ে ভাল ভাবে চলতে পারবেন। আমরা অনলাইনে সারাদেশের অর্ডার গ্রহন করি। আমাদের চা পাতার প্রাইজ তালিকা ও অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করে দেখতে পারেন।
যদি সব কিছু ঠিকঠাক হয় তাহলে আপনি অর্ডার করতেও পারেন। সেটা আপনাদের একান্ত ইচ্ছে।

অথবা ফোনে বিস্তারিত জানতে পারেন ও অর্ডার করতে পারেনঃ +8801713-426386 এই নাম্বারে।

ধন্যবাদ ধৈর্যসহকারে সময় ব্যয় করে এই লম্বা পোস্ট পড়ার জন্য। আর যদি কারো কিছু জানার থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্স কমেন্ট করতে পারেন। সময় করে উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো

আল্লাহ হাফেজ।

লেখাটি ভাল লাগলে আপনি শেয়ার করতে পারেন।

Facebook Comments

Share The Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Call Now Button